free_shipping_English_728x90
পশ্চিম বঙ্গ
ভারতের বিভিন্ন মানচিত্র

পশ্চিমবঙ্গ সঙ্গীত

Store-banner

Music of West Bengal in Bengali

পশ্চিমবঙ্গের সঙ্গীত

সঙ্গীতের বিভিন্ন রূপ পশ্চিমবঙ্গের শিল্প ও সংস্কৃতির এক অবিচ্ছেদ্য অংশ। অতীতের সমৃদ্ধ সাংস্কৃতিক ঐতিহ্যকে প্রতিনিধিত্ব করে, রাজ্যে দুই ধরনের গুরুত্বপূর্ণ শাস্ত্রীয় সঙ্গীতের বিদ্যালয় রয়েছে যা তাদের অনন্য শৈলীর জন্য সুপরিচিত। সঙ্গীতের শাস্ত্রীয় বিদ্যালয় বা বিভিন্ন ঘরানা পশ্চিমবঙ্গের সমৃদ্ধ সাংস্কৃতিক এবং সামাজিক জীবনকে প্রতিফলিত করে।

এক অন্যতম বিশিষ্ট সঙ্গীত বিদ্যালয়, বিষ্ণুপুর সঙ্গীত ঘরানা ধ্রুপদ সঙ্গীত শৈলীকে প্রতিনিধিত্ব করে। বিষ্ণুপুর সঙ্গীত বিদ্যালয়ের একটি সমৃদ্ধ ইতিহাস আছে। বিষ্ণুপুর সঙ্গীত বিদ্যালয় বাহাদুর শাহের দ্বারা প্রতিষ্ঠিত হয়, যিনি ধ্রুপদ শৈলীর এক পৃষ্ঠপোষক ছিলেন। এই বিদ্যালয়ের নাম উদ্ভূত হয়েছে পশ্চিমবঙ্গের বিষ্ণুপুর জেলার থেকে, যেখানে বহু সঙ্গীত শিল্পীর আবির্ভাব ঘটেছে।

হিন্দুস্থানী শাস্ত্রীয় সংগীতে অনুরক্ত বিষ্ণুপুর সঙ্গীত বিদ্যালয়ের বিশিষ্ট সঙ্গীতজ্ঞরা প্রাচীনকালের সামন্ততান্ত্রিক নেতাদের পৃষ্ঠপোষক ছিলেন। বিষ্ণুপুর বিদ্যালয় বর্তমান যুগের শাস্ত্রীয় সঙ্গীতের দুনিয়ায় এখনও শাসন চালাচ্ছে।

রবীন্দ্র সঙ্গীত

পশ্চিমবঙ্গের সংবেদনশীল এবং সমৃদ্ধ সাংস্কৃতিক জীবনকে প্রতিনিধিত্ব করে রবীন্দ্র সঙ্গীত যা হিন্দুস্থানী এবং ইউরোপীয় শাস্ত্রীয় সঙ্গীতের একটি নিখুঁত সংমিশ্রন। ঠাকুর সঙ্গীত বিদ্যালয় হিসাবে পরিচিত, রবীন্দ্র সঙ্গীত বাংলা শাস্ত্রীয় সঙ্গীতের হৃদয় ও আত্মা। বাংলার শাস্ত্রীয় সঙ্গীতের এক বিশিষ্ট বিদ্যালয়, রবীন্দ্র সঙ্গীত পশ্চিমবঙ্গের সংস্কৃতি সমৃদ্ধ মানুষদের জন্য শিথিলায়ন এবং বিনোদনের একটি জনপ্রিয় উপায়।

নোবেল বিজয়ী রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর দ্বারা উপস্হাপিত রবীন্দ্র সঙ্গীতের বিভিন্ন গান শ্রোতাদের একটি ঐন্দ্রজালিক বন্ধনে আবদ্ধ করে। রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের অনন্য সংযোজনকে বিস্তৃতভাবে পাঁচটি স্বতন্ত্র বিভাগে ভাগ করা যেতে পারে, যা হল প্রেম, প্রকৃতি, পূজা, দেশ এবং সাধরণ গানের সমন্বয়ে গঠিত।
ধ্রুপদ, টপ্পা এবং বাউল সঙ্গীত শৈলীর উপর ভিত্তি করে, রবীন্দ্র সঙ্গীতের চমৎকার সঙ্গীত রচনা এক বৃহৎ সংখ্যক শ্রোতাদের মুগ্ধ করে। মূলত বাংলা ভাষায় লিখিত এবং রচিত রবীন্দ্র সঙ্গীত পরে হিন্দি এবং অন্যান্য ভাষায় অনূদিত হয়।

লোক-গীতি

গ্রাম বাংলার লোক-গীতি আদ্যিকালের সমৃদ্ধ সাংস্কৃতিক এবং ঐতিহাসিক উত্তরাধিকারকে প্রতিনিধিত্ব করে। গ্রাম বাংলার সুমধুর তথা সহজ রচনার বিভিন্ন ধরণের লোক-গীতি শ্রোতাদের উপর একটি ঐন্দ্রজালিক যাদু নিক্ষেপ করে।

তাদের মনোরম সুর এবং জীবনের সহজ পথ প্রদর্শন বাণীর কারনে বাংলার লোক গীতি একটি বিশ্বব্যাপী রূপ অর্জন করেছে। লোক-গীতি গুলির চমৎকার রচনা কবিসুলভ কল্পনাকে বন্দী করে এবং বিশ্বে আনন্দ ছড়িয়ে দিতে সাহায্য করে।

গ্রাম বাংলার সমৃদ্ধ লোক-গীতিকে পৃথক ভাবে চার ভাগে শ্রেণীকরণ করা হয়; যথা – বাউল, কীর্তন, ভাটিয়ালী এবং সারি গান। লোক সঙ্গীতের এই চারটি বিভিন্ন ধারা তাদের অনন্য শৈলী এবং সঙ্গীত রচনার জন্য বিখ্যাত। লোক-গীতি গ্রামীণ শিল্পীদের অন্তর্নিহিত প্রাকৃতিক প্রতিভাকে প্রতিফলিত করে, যারা এই চমৎকার সঙ্গীতের দ্বারা নিজেদের মনকে সতেজ রাখে ও সুপ্ত দক্ষতাকে অন্বেষণ করে। সঙ্গীত হল মনকে সতেজ রাখার এক সেরা পন্থা। পশ্চিমবঙ্গের এই দুটি সঙ্গীত বিদ্যালয়ের সঙ্গে জড়িত সুন্দর সঙ্গীত শৈলী ও আবেগসহ সঙ্গীতের মনোরম সুর ও তাল শ্রোতাদের অভিভূত করে।

বাদ্যযন্ত্র

পশ্চিমবঙ্গের স্থানীয় বাদ্যযন্ত্র রাজ্যের সমৃদ্ধ বাদ্যযন্ত্র প্রথা ও ঐতিহ্যকে প্রতিফলিত করে। বাদ্যযন্ত্রের ব্যাপক বৈচিত্র্য পশ্চিমবঙ্গের মানুষদের সঙ্গীত উদ্দিপনাকে প্রতিনিধিত্ব করে।

পশ্চিমবঙ্গ সর্বদাই সাংস্কৃতিক সভ্যতা এবং উন্নতির স্নায়ু কেন্দ্র হয়ে রয়েছে। অনাদিকাল থেকে বিভিন্ন লোক – সংস্কৃতি এবং ঐতিহ্য দর্শকদের মনোযোগের প্রধান বিষয় হয়ে আসছে। লোকসঙ্গীত বাঙ্গালী সম্প্রদায়ের স্থানীয় গ্রামীণ সংস্কৃতির একটি অবিচ্ছেদ্য অংশ। যথাযথ বাদ্যযন্ত্র দ্বারা অনুষঙ্গী, এই সুন্দর লোকসঙ্গীত বাংলার গ্রামীণ মানুষদের নিস্তেজ ও ক্লান্তিকর জীবনকে আনন্দ ও উল্লাসে পরিপূর্ণ করে তোলে।

বিষ্ণুপুর সঙ্গীত বিদ্যালয়

বিষ্ণুপুর সঙ্গীত বিদ্যালয় বাংলার সমৃদ্ধ সাংস্কৃতিক জীবনকে প্রতিফলিত করে। এক অন্যতম বিশিষ্ট সঙ্গীত বিদ্যালয়, বিষ্ণুপুর ঘরানা ধ্রুপদ সঙ্গীত শৈলীকে প্রতিনিধিত্ব করে। সম্রাট আকবরের দরবারের নবরত্নের মধ্যে অন্যতম সঙ্গীতজ্ঞ মিঞা তানসেন দ্বারা এই ধ্রুপদ শৈলী জনপ্রিয় হয়।

বিষ্ণুপুর সঙ্গীত বিদ্যালয় নামটি উদ্ভূত হয় পশ্চিমবঙ্গের বাঁকুড়া জেলার অন্তর্গত বিষ্ণুপুর নামক জায়গা থেকে। বিষ্ণুপুর সঙ্গীত বিদ্যালয় একটি সাংস্কৃতিক ও ঐতিহাসিক উত্তরাধিকার বলে দাবী রাখে। দিল্লীর মুঘল শাসকদের প্রিয়, বিষ্ণুপুর সঙ্গীত বিদ্যালয়ের ধ্রুপদ সঙ্গীত শৈলীর ভিত বাহাদুর শাহ দ্বারা প্রতিষ্ঠিত। ধ্রুপদ সঙ্গীত শৈলীর এক প্রগাঢ় পৃষ্ঠপোষক, বাহাদুর শাহ ১৩৭০ খ্রিস্টাব্দে হিন্দুস্তানী শাস্ত্রীয় সঙ্গীতের রঙ্গভূমিতে এক নতুন রেখা অঙ্কন করেন।

বিষ্ণুপুর সঙ্গীত বিদ্যালয় এক নিখুঁত ধ্রুপদ শৈলীতে বহু ধরনের ভক্তিমূলক গান রচনা করেছে। এই বিখ্যাত সঙ্গীত বিদ্যালয়ের কিছু বিশিষ্ট পৃষ্ঠপোষক ব্রাহ্ম সমাজের অন্তর্ভুক্ত, যারা এই সঙ্গীত বিদ্যালয়ের সঙ্গীত শৈলীতে মুগ্ধ হয়ে নিজেদের আত্মসমৃদ্ধি ও বিনোদনের জন্য এই সঙ্গীত শৈলীকে প্রতিপালন করেছিলেন।

* সর্বশেষ সংযোজন : ১৬ - ই এপ্রিল, ২০১৫